একটি পোস্টার!! অনেক প্রশ্ন

একটি পোস্টার ঢাকাবাসীর মনে কৌতূহলের জন্ম দিয়েছে। পরিবহন খাতের বিভিন্ন বাসের সামনে, পেছনে হলুদ ব্যাকগ্রাউন্ডের ওপর লাল ও বেগুনী হরফে লেখা পোস্টারটি শোভা পাচ্ছে। ঢাকাস্থ সকল বাস মালিক ও শ্রমিকবৃন্দের ব্যানারে এ পোস্টার লাগানো হয়েছে। এতে বলা হয়েছে ঢাকাস্থ পরিবহন সেক্টর দখল ষড়যন্ত্রকারীদের অবিলম্বে গ্রেপ্তারের দাবি জানাই। এসব পোস্টার ফুলবাড়িয়া বাসস্ট্যান্ড, মহাখালী, গাবতলী ও সায়েদাবাদ বাস টার্মিনালে ছেয়ে গেছে। জয়কালি মন্দিরের সামনের বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনের অফিসের সামনেও এ পোস্টার দেখা গেছে। পোস্টারটি নিয়ে কোনো ধরনের কথা বলতে নারাজ বাসের চালক ও হেলপাররা। তবে তারা বলছেন, রাতের আঁধারে কে বা কারা পোস্টার লাগিয়েছে আমরা বলতে পারবো না।

ওদিকে গতকাল বেশকিছু বাসে পোস্টার ছেঁড়া দেখা যায়।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক ওসমান খান মুঠোফোনে বলেন, পোস্টার লাগানোর বিষয়ে শ্রমিক ফেডারেশনের কোনো ভূমিকা নেই। এটা মালিক সমিতির অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্বের বিষয়। আপনার মতো আমিও বিভিন্ন ধরনের পোস্টার দেখতে পাচ্ছি। কখনো দেখছি বাচ্চুর ফাঁসি চাই। কখনো দেখছি এনায়েতের ফাঁসি চাই। এ বিষয়ে শ্রমিক ফেডারেশনের কোনো ভূমিকা নেই। এদিকে পরিবহন সংশ্লিষ্ট একটি সূত্র বলছে, ঢাকার সব গণপরিহনকে এক ছাতার নিচে নিয়ে আসার যে প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে তাতে সম্মত না মালিক সংগঠন। এ কারণে তারা নানা ধরনের বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছেন মালিক-শ্রমিকদের মধ্যে। ঢাকার প্রয়াত মেয়র আনিসুল হক বাসগুলোকে একটি ছাতার নিচে এনে কয়েকটি রুটে ভাগ করে চালানোর যে প্রক্রিয়া শুরু করেছিলেন তা অনেকদূর এগিয়েছে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা। এ প্রক্রিয়া বাস্তবায়ন হলে গণপরিবহন ঘিরে চাঁদাবাজি ও অর্থ আদায়ের সুযোগ থাকবে না বলে সুবিধাভোগী চক্র এ ধরনের তৎপরতায় জড়িত বলে অনেকে মনে করছেন। 

Print Friendly, PDF & Email
×

সারা বাংলা সারা দিন-এর সাথেই থাকুন!