পাঁচ গানের অ্যালবাম নিয়ে স্বীকৃতি

অ্যালবাম প্রথা নেই বললেই চলে। মাঝে বছর খানেক ইপি অ্যালবামের (২-৫ গান) একটা ধারাবাহিকতা তৈরি হয়েছিলো। সেটাও এখন হচ্ছে না। তবে এখনো দু’একজন ইপি কিংবা পূর্ণাঙ্গ অ্যালবামে আগ্রহী হচ্ছেন, বিভিন্ন ঘরানার শ্রোতাদের মন জয় করার লক্ষ্যে।

সেই ধারাবাহিকতায় পাঁচ গানের ইপি অ্যালবামের কাজ শুরু করেছেন কণ্ঠশিল্পী শাহনাজ রহমান স্বীকৃতি। এরইমধ্যে দুটি গানে কণ্ঠও দিয়েছেন তিনি।

এগুলো হচ্ছে- ‘কদমতলায় কে বাঁশি বাজায়’ ও ‘চিতার অনলে’। শাহ মিলাদ’র কথায় প্রথম গানটির সুর-সঙ্গীত করেছেন তানজিম রোমান্স। অন্যদিকে ‘চিতার অনলে’ গানটির কথা লিখেছেন সুদীপ কুমার দীপ। সুর-সঙ্গীতায়োজনে আহমেদ হুমায়ূন।

সময় নিয়েই অ্যালবামটি কাজ এগোতে চাচ্ছেন স্বীকৃতি। বাকি তিনটি গান এখনো নির্বাচন করেননি। সময় নিয়ে বিভিন্ন ঘরানার গানের মিশ্রণে অ্যালবামটির কাজ সম্পন্ন করবেন বলে জানিয়েছেন এই শিল্পী।

এ প্রসঙ্গে স্বীকৃতি বাংলানিউজকে বলেন, ধীরে ধীরে অ্যালবামের কাজ এগোচ্ছি। তাড়াহুড়ো করে কিছু করতে চাচ্ছি না। অ্যালবাম কখন প্রকাশ করবো, সেই সিদ্ধান্তও নেইনি। শ্রোতাদের চাহিদাকে প্রাধান্য দিয়ে নিজের মনঃপূত একটি অ্যালবামই করতে চাচ্ছি।

এদিকে পশ্চিমবঙ্গের জনপ্রিয় সঙ্গীতশিল্পী রুপঙ্কর বাগচীর সঙ্গে প্রথমবার একটি গান করলেন স্বীকৃতি। গানটি ‘কাঠের পুতুল’ শিরোনামে প্রকাশ পাবে।

‘আমার আকাশ মেঘলা কালো/তোমার আকাশ নীল/এক ভুবনের দুই বাসিন্দা/খুব বেশি গড়মিল’- এমন কথার গানটির কথা, সুর ও সঙ্গীতায়োজন করেছেন রবিন ইসলাম।

রুপঙ্করের সঙ্গে প্রথমবার গান গাওয়া প্রসঙ্গে স্বীকৃতি বলেন, রুপঙ্কর দাদা অনেক গুণী সঙ্গীতশিল্পী। তিনি কলকাতার পাশাপাশি আমাদের দেশের অনেক বড় বড় তারকা সঙ্গে কাজ করেছেন। তার সঙ্গে প্রথমবার আমিও কাজ করলাম, এটা সত্যিই আনন্দের। গানটিও খুব ভালো হয়েছে। আশা করছি গানটি শ্রোতাদের মাঝে মুগ্ধতা ছড়াবে।

এরইমধ্যে ঢাকার বিভিন্ন নয়নাভিরাম দৃশ্যায়নে গানটির শুটিং হয়েছে। এতে মডেল হয়েছেন- অপু, ফিনহা ও শশী। এছাড়া গানটির স্টুডিও গায়কীতে দেখা যাবে রুপঙ্কর-স্বীকৃতিকে।

কিছুদিন আগে কলকাতার লেক টাউনের একটি স্টুডিওতে গানটিতে একসঙ্গে কণ্ঠ দিয়েছেন রুপঙ্কর বাগচী-শাহনাজ স্বীকৃতি।

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published.

×

সারা বাংলা সারা দিন-এর সাথেই থাকুন!