বিশ্ব সেরা শিক্ষকের পুরস্কার পেলেন কেনিয়ার পিটার

প্রত্যন্ত গ্রামে গণিত ও পদার্থবিজ্ঞান পড়াতেন পিটার তাবিচি। শিক্ষকতা করে যে টাকা উপার্জন করতেন তার আশি ভাগ গরীব দুঃখী মানুষের মধ্যে বিলিয়ে দিতেন তিনি। সেই মানুষটিই জিতেছেন বিশ্বের সেরা শিক্ষকের পুরস্কার। আফ্রিকার দরিদ্র দেশ কেনিয়ায় জন্ম নেয়া পিটার পুরুস্কার হিসেবে পেয়েছেন এক মিলিয়ন ডলার।

রোববার দুবাইয়ে এক জমকালো অনুষ্ঠানের মাধ্যমে বিশ্বের সেরা শিক্ষক হিসেবে পিটার তাবিচির নাম ঘোষণা করা হয়। এসময় তাকে ভার্কি ফাউন্ডেশনের গ্লোবাল টিচার প্রাইজ দেয়া হয়। মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিএনএন প্রতিবেদনে উল্লেখ করেছে, পিটার ক্যাথলিক চার্চকেন্দ্রিক ধর্মীয় গোষ্ঠী ফ্যান্সিসক্যান সদস্য। 

সেরা শিক্ষকের পুরস্কার পাওয়া পিটার কেনিয়ার পওয়ানি নামক গ্রামের স্কুলে শিক্ষকতা করতেন। যেখানে প্রতি ৫৮ জন শিক্ষার্থীর জন্য মাত্র একজন শিক্ষক ছিলেন। খুবই কম শিক্ষাসামগ্রী নিয়ে চলে স্কুলটি। তাছাড়া যেখানকার অধিকাংশ শিক্ষার্থীই ছিল এতিম।

স্কুলটিতে নানান সমস্যার মধ্যে খাদ্যের অভাব, মাদকাসক্তি, কম বয়সে গর্ভধারণ ও বাল্যবিবাহ সমস্যায় ভুগতে হয়েছে পিটারকে। তবে এতকিছুর পরও গত ৩ বছরে স্কুলটিতে শিক্ষার্থী বেড়ে হয়েছে দ্বিগুণ। আর সেখান থেকে পাস করা বেশিরভাগ শিক্ষার্থী এখন মাধ্যমিকে পড়ছে।

স্কুলটিতে শিক্ষার্থীদের জন্য নামমাত্র একটি সায়েন্স ক্লাব ছিল। যেখানে দুই-তিনটি কম্পিউটার থাকলেও কাজ করার উপযোগী ছিল মাত্র একটি। শিক্ষার্থীদের বিজ্ঞানমনস্ক করে তুলতে তিনি বিভিন্নভাবে বিজ্ঞানের উপকরণ সংগ্রহের চেষ্টা চালিয়ে গেছেন। তার একান্ত প্রচেষ্টায় স্কুলটির শিক্ষার্থীরা এখন জাতীয় ও আন্তর্জাতিক বিজ্ঞান প্রতিযোগিতায় অংশ নেন।

যুক্তরাজ্যের রয়্যাল সোসাইটি অফ কেমিস্ট্রি থেকেও পুরস্কার পেয়েছেন তিনি। যুক্তরাষ্ট্রের অ্যারিজোনা অঙ্গরাজ্যে বিখ্যাত সফটওয়্যার নির্মাতা প্রতিষ্ঠান ইনটেলের আয়োজনে ইন্টারন্যাশনাল সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনায়িরারিং ফেয়ারে অংশ নিতে মনোনীত হয়েছে স্কুলটির শিক্ষার্থীরা।

পিটারকে বিশ্বের সেরা শিক্ষকের পুরস্কার দেয়া লন্ডনভিত্তিক আন্তর্জাতিক স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা ভার্কি ফাউন্ডেশন সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের শিক্ষার মানোন্নয়নে কাজ করে। তারা বলছে, বিশ্বের ১৭৯টি দেশের ১০ হাজার শিক্ষককে পেছনে ফেলে পুরস্কার জিতেছেন পিটার তাবিচি।

পুরস্কার হাতে নিয়ে পিটার বলেন, আফ্রিকায় প্রতিদিন নতুন নতুন অধ্যায়ের সূচনা হচ্ছে। সেরা শিক্ষকের পুরস্কারের দিনটিও তেমন। এই পুরস্কার শুধু আমাকে মূল্যায়ন করা নয় বরং আফ্রিকার সব তরুণের মূল্যায়ন।

পুরস্কারের প্রবর্তক ও ভার্কি ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা সানি ভার্কি বলেন, পিটারের অর্জন অন্যদের অনুপ্রাণিত করবে। আর কেনিয়াসহ বিশ্বজুড়ে শিক্ষকরা যে অবিশ্বাস্য কাজ করছে তা গুরুত্ব পাবে।

Print Friendly, PDF & Email
×

সারা বাংলা সারা দিন-এর সাথেই থাকুন!