বিয়ের পর ১৭ দিন সংসার করেই স্বামী হারালেন রিনা

বিয়ের পর ১৭ দিন সংসার করেই স্বামী হারালেন রিনা
বিয়ের পর ১৭ দিন সংসার করেই স্বামী হারালেন রিনা

২০১৬ সালে ৮ আগস্ট নববধুর সাজে সেজেছিলেন রিনা আক্তার (২০)। হাতের মেহেদীর রং না শুকাতেই বিয়ের ১৭ দিনের মাথায় নিউজিল্যান্ডে পাড়ি দেয় রিনা আক্তারের স্বামী জাকারিয়া ভূঁইয়া।

প্রায় আড়াই বছর প্রবাসে সময় পাড় করার পর আগামী ঈদুল ফিতরে বাড়ি ফেরার কথা ছিল জাকারিয়ার। দীর্ঘ প্রতিক্ষার পর স্বামীকে কাছে পাবে মনে মনে সেই স্বপ্ন একেছিলেন রিনা আক্তার।

কিন্তু তার স্বপ্ন স্বপ্নই থেকে গেল। গত শুক্রবার নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চ শহরে আল নূর মসজিদে জুমার নামাজ পড়তে গিয়ে বন্দুকধারীর গুলীতে নিহত হয় রিনা আক্তারের স্বামী জাকারিয়া ভূঁইয়া। স্বামী নিহত হওয়ার খবর শুনে রিনা আক্তার এখন শোকে স্তব্ধ হয়ে গেছে।

নিজেকে সামলানোর কোনো শক্তি ও মনোবল যেন তার মধ্যে নেই। রিনা আক্তার নরসিংদীর পলাশ উপজেলার গজারিয়া ইউনিয়নের সরকার চর গ্রামের আব্দুল আলীর মেয়ে। প্রায় আড়াই বছর পূর্বে একই ইউনিয়নের জয়পুরা গ্রামের আব্দুল বাতেন ভূঁইয়ার ছেলে জাকারিয়া ভূঁইয়ার সাথে পারিবারিক ভাবে বিয়ে হয় রিনা আক্তারের।

বিয়ের ১৭ দিনের মাথায় জাকারিয়া কাজের উদ্দেশ্যে নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চ শহরে পাড়ি দেয়। এর আগে জাকারিয়া দীর্ঘ আট বছর সিঙ্গাপুরে ওয়েল্ডার টেকনিশিয়ান হিসেবে কাজ করে এসেছিলেন। দেশে এসে কিছুদিনের মধ্যে বিবাহ সম্পন্ন করে পুনরায় বিদেশের মাটিতে পাড়ি দেয়।

সরেজমিন জাকারিয়ার গ্রামের বাড়ি গিয়ে দেখা যায়, পরিবারের অন্যান্য সদস্যের মত শোকে স্তব্ধ হয়ে আছে জাকারিয়ার স্ত্রী রিনা আক্তার। বার বার স্বামীর ছবিটি বুকে জড়িয়ে ধরে হাউমাই করে কেঁদে উঠছেন আর চিৎকার করে বলছেন, আমার স্বামীকে তোমরা এনে দাও।

এদিকে মেয়েকে শান্ত্বনা দিতে ছুটে এসেছেন তার বাবা আব্দুল আলী ও মা মজিদা বেগম। রিনা আক্তারের বাবা আব্দুল আলী কান্নাজড়িত কণ্ঠে বলেন, সংসার জীবনের শুরুতেই মেয়ের জীবনে এত বড় ক্ষতি হয়ে যাবে তা কখনো ভাবিনি। সরকার যেন দ্রুত জাকারিয়ার লাশটি দেশে আনার ব্যবস্থা করে দেয়।

Print Friendly, PDF & Email
×

সারা বাংলা সারা দিন-এর সাথেই থাকুন!