ভৈরবে চাল,পলিথিন ও স্বর্ণ ব্যবসায়ীকে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অর্থদণ্ড

ভৈরবে পাটের বস্তা ব্যবহার না করে প্লাস্টিকের বস্তায় চাল বিক্রি, নিষিদ্ধ পলিথিন বিক্রি ও স্বর্ণ ব্যবসায়ীর ডিলিং লাইসেন্স না থাকার অপরাধে ভৈরব বাজারের আট ব্যবসায়ীকে অর্থদন্ড প্রদান করেছে ভ্রাম্যমাণ আদালত।

মঙ্গলবার (২৬ নভেম্বর) বিকেলে উপজেলা নির্বাহি কর্মকর্তা ও নির্বাহি ম্যাজিস্ট্রেট
লুবনা ফারজানা ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে এ অর্থদন্ড প্রদান করেন।

ভ্রাম্যমাণ আদালতে ভৈরব রাণীর বাজারের চাল ব্যবসায়ী মোঃ আকরাম হোসেন কে ৩ হাজার , হাজী মামুন মিয়া কে ১০ হাজার, মোঃ সুলাইমান মিয়া কে ৮ হাজার, হারুন-উর রশিদ কে ৫ হাজার, চকবাজারের পলিথিন ব্যবসায়ী আক্তার মিয়াকে ১০ হাজার টাকা অর্থদন্ড প্রদান করা হয়। এছাড়াও স্বর্ণব্যবসায়ী নাথ জুয়েলার্সের প্রোপাইটর প্রেম নাথ, অভি গোল্ড হাউসের মালিক মিঠু ও মাধব শিল্পালয়ের মালিক মাধব প্রত্যেককে ৮ হাজার টাকা করে অর্থদন্ড প্রদান করেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

অভিযানে ভৈরব উপজেলা নিরাপদ খাদ্য পরিদর্শক রুহুল আমীন ও পৌর নিরাপদ খাদ্য পরিদর্শক নাছিমা বেগমসহ ভৈরব থানা পুলিশ সহায়তা করেন।

ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহি ম্যাজিস্ট্রেট ও উপজেলা নির্বাহি কর্মকর্তা লুবনা ফারজানা জানান, বন্দর নগরী ভৈরবে দীর্ঘদিন ধরেই কিছু সংখ্যক চাল ব্যবসায়ী পাটের বস্তা ব্যবহার না করে প্লাস্টিকের বস্তায় চাল বিক্রির অভিযোগের ভিত্তিতে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করি। পাশাপাশি নিষিদ্ধ পলিথিন বিক্রি ও বাজারের অধিকাংশ স্বর্ণ ব্যবসায়ীরা ডিলিং লাইসেন্সবিহীন ব্যবসা পরিচালনা করে আসছিল যা অপরাধ। এসব অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতেই ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে মোট আটজন ব্যবসায়ীকে জরিমানা করা হয়। এছাড়াও অবৈধ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে এসব অভিযান অব্যাহত থাকবে বলেও জানান ইউএনও লুবনা ফারজানা।

Print Friendly, PDF & Email
×

সারা বাংলা সারা দিন-এর সাথেই থাকুন!